শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০৯ অপরাহ্ন

নিউজ অনলাইন বিডি:
নিউজ অনলাইন বিডি পোর্টালে স্বাগতম। আপনার আশেপাশে ঘটে যাওয়া ঘটনার ছবি ও খবর আমাদেরকে মেইল করুন। দেশ ও জাতির কল্যাণে আমাদের সাথেই থাকুন।
প্রয়াত কিংবদন্তী চলচ্চিত্র নায়ক ওয়াসিম; কিছু বাস্তব উপলব্ধি

প্রয়াত কিংবদন্তী চলচ্চিত্র নায়ক ওয়াসিম; কিছু বাস্তব উপলব্ধি

বুশরা চৌধুরী
অতঃপর, তিনি মারা যাবার পর সোশাল মিডিয়ায় তাঁর অগনিত ভক্তদের ভালবাসার হিড়িক পড়তে দেখে সবার উপলব্ধি হয়েছে নায়ক ওয়াসিম এর বাংলাদেশ চলচ্চিত্রে কি বিশাল পরিমাণ অবদান ছিল!!! কি অকৃতজ্ঞ জাতি আমরা! তাই না? বেঁচে থাকতে তাঁর কোনো মূল্যায়ন ই করা হয় নি! রাষ্ট্র কিংবা বাংলাদেশের চলচ্চিত্র বা চলচ্চিত্র পরিবার কেউ ই না! শুধু মাত্র তার অগনিত ভক্তদের ভালবাসাই ছিল সম্বল তাঁর কাছে।
৭০, ৮০ দশকের সোনালী সময়ে নায়ক ওয়াসিম যখন সিনেমা অঙ্গনে অপ্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে ওঠেন তখন কত প্রযোজক, পরিচালক, হল মালিকদের কোটি কোটি টাকার লাভবান করিয়েছেন তিনি একাই, কত নায়িকাদের কাজ করার সুযোগ দিয়ে রাতারাতি super Star বানিয়ে দিয়েছেন। কারন তখন শুধু মাত্র নায়ক ওয়াসিম মানেই ছবি সুপার হিট। কিন্তু, মানুষ সব ভুলে যায়! তাই তো , ২০০০ সালে স্ত্রী এবং ২০০৬ সালে একমাত্র মেয়ে বুশরা মারা যাবার পর তিনি মানুষিক ভাবে প্রচন্ড রকম ভেঙে পড়েন! সব কিছু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে শুধু মাত্র ধর্ম কর্ম নিয়েই দিনাতিপাত করতেন। কিন্তু তারপরও তিনি সবার খবরাখবর কোনো না কোনো ভাবে রাখতেন। অথচ তাঁর কোনো খবর রাখতেন না কেউ বিশেষ করে চলচ্চিত্র পরিবার। ঘরে বসে চলচ্চিত্র শিল্পীদের নানান সাক্ষাৎকার তিনি দেখতেন টিভি চ্যানেলে। আগ্রহ নিয়ে দেখতে বসে মনে কষ্ট অনুভব করতেন ভীষণভাবে। কারন সেই চলচ্চিত্র পরিবার এর কেউ ই প্রসঙ্গ ক্রমেও তাঁর নামটি নিতেন না ভুলেও! গত ১০টি বছর আমি এ মানুষ টির সাথে ছায়ার মত মিশে ছিলাম, তাঁর পরিবারের সদস্য হয়ে, কারন আমার নাম উনার মেয়ের নামেই। উনি ভাবতেন উনার মেয়ে ফিরে এসেছে তাঁর কাছে, আমার মধ্যে ই উনার হারানো মেয়েকে খুজে পেতেন তিনি ! তাই তো গত প্রায় দশ বছরে তাঁর প্রিয় চলচ্চিত্র থেকে পাওয়া সব কষ্টের কথা বলতেন আমাকে দিনের পর দিন! আর বলতেন তোমাকে সব বলে যাই আমি।! আমি স্বান্তনা দিয়ে বলতাম _”এসব অকৃতজ্ঞদের কথা আপনিও ভুলে যান, চেয়ে দেখুন আপনার কত কোটি কোটি ভক্ত সোশাল মিডিয়ায় আপনাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করে, কত ভালবাসে আপনাকে তারা অন্তর থেকে”। আমার কথা শুনে উনি হাসতেন অনেক কষ্টে! ১৯৭৯ সালে “ঈমান” ছবিতে জাতীয় পূরষকার থেকে বন্চীত করার ষরযন্ত্রের কথা আমৃত্যু ভুলেননি তিনি! এর পেছনে যেসব নায়ক নায়িকারা জড়িত ছিলেন তাঁদেরকেও তিনি ক্ষমা করেননি !!! মৃত্যুর কিছুদিন আগেও আমাকে বলেছিলো ভাঙ্গা মন নিয়ে। যদিও এ কষ্টের কথা বছরের পর বছর আমি শুনেছি। এ নিয়ে সোশাল মিডিয়ায় আর্টিকেল লিখেছি , ভিডিও প্রতিবেদন তৈরি করেছি ইউটিউব এ।
২০০৬ সালে একমাত্র মেয়ে বুশরা মারা যাবার পর তিনি যখন মানসিক ভাবে বিদ্ধস্ত সেদিনও মানবিক কারনেও চলচ্চিত্র পরিবার এর কেউ ই তাঁর পাশে থাকেননি!
এতসব কিছুর পরে চলচ্চিত্র থেকে এবং চলচ্চিত্র শিল্পীদের থেকে তিনি মুখ ফিরিয়ে নেবেন সেটাই তো স্বাভাবিক ছিল! তাই নয় কি!!!!!?????
আজকাল ফেইসবুক, ইউটিউব টিভি, পত্রিকার পাতায় মায়া কান্না আর স্মৃতিচারনে ভাসিয়ে দিচ্ছে নায়ক ওয়াসিম এর সেই সব তথাকথিত নায়ক, চলচ্চিত্র কলা কুশলী আর বিশেষ করে নায়িকারা! অথচ জীবিত অবস্থায় কোনো খবরই নেননি।এমনকি মৃত্যুর ‘মাসখানেক আগে থেকেই আমি ফেসবুক/ইউটিউব এ উনার অসুস্থতার খবর জানিয়েছি, ব্যাক্তিগতভাবেও আমার মাধ্যমে সহকর্মীদের অনেকেই জেনেছিলেন কিন্তু একবারও কেউ ফোন করে এ মানুষটির খবর নেয়নি!!!!
কি অকৃতজ্ঞ, কি আজব এ পৃথিবী আর তার মানুষ! তাই না!!!???
নিরবেই এ পৃথিবীতে থেকে তিনি চির বিদায় নিলেন তিনি। ভাগ্যিস, নায়ক ওয়াসিম আজ আর নেই! তাই তো তিনি তাঁর মৃত্যুর পর আর এসব অভিনয় দেখছেন না, আর কষ্টও পাচ্ছেন না!!!
আমি শুধু বলব, মহান আল্লাহ পাক যেন, এই সহজ সরল , অত্যন্ত আবেগপ্রবন, মানবিক মানুষটিকে যেন জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন।
আমীন।
২১.৪ ২০২১

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
প্রকাশকঃ আরিফ জামান, সম্পাদকঃ সাইফ হাসান, বার্তা সম্পদকঃ মাহবুবা রেহমান ©নিউজ অনলাইন বিডি, সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web